June 24, 2024, 12:02 pm
শিরোনাম :
পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে পশুর হাটের সার্বিক আইন – শৃঙ্খলা রক্ষার্থে মতবিনিময় সভা সম্পন্ন পিবিআই এর দৃঢ়তায় মানবপাচারকারী এর হাত থেকে ভিকটিম উদ্ধার, আটক -৩: ভিন্ন আঙ্গিকে নবাবগঞ্জ উপজেলা হিন্দু ছাত্র মহাজোট এর শরবত ও স্যালাইন বিতরণ কর্মসূচি এলজিইডি এর মূল্যায়নে শ্রেষ্ঠ ইউপি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হলেন এম এ বারী বাবুল মোল্লা নরসিংদীতে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে ২ পক্ষের টেঁটাযুদ্ধ আন্তর্জাতিক মা দিবস উপলক্ষে BHDS অপরাধ প্রতিরোধ কল্যাণ সংস্থার উদ্যোগে আলোচনা ও গুণীজন সম্মাননা প্রদান নরসিংদীর রায়পুরায় ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীকে পিটিয়ে হত্যা ব্যবিচারে লিপ্ত থাকায় আবাসিক হোটেল থেকে নারী – পুরুষ গ্রেফতার -২ নবাবগঞ্জের শোল্লায় এক শিশুকে হত্যার অভিযোগে ২ জন গ্রেফতার রুগঞ্জে জালভোট দেওয়ার সময় ২ যুবক আটক:

রোজারত অবস্থায় গণমাধ্যম কর্মীকে থাপ্পড় দিলো কনেস্টেবল রিদয়

মুন্নী আক্তার, ক্রাইম রিপোর্টার

নারায়ণগঞ্জের ১ নং রেল গেইট সংলগ্ন, অসহায় মানুষের জন্য ত্রাণ কিনে আসার সময়, গণমাধ্যম কর্মী একটি ট্রাফিকের কাছে সহযোগিতা চাওয়ার জন্য তার হাতে দরে পাশ ঘুড়েই সে তার গালে চড় বসিয়ে দেয় এবং বলে “আমি আমার কর্তৃপক্ষের কাজ করতেছি, তুই কিসের সাংবাদিক তর কথায় আমার চলতে হবে?”
পরক্ষণেই এই দৃশ্য আরেক সাংবাদিকের চোখে পড়লে, সে থামাতে গেলে তার ওপরেও চড়াও হয় সেই কর্কশ কনস্টেবল রিদয়।উপস্থিত জনতার সামনে এভাবে একজন সাংবাদিকে গায়ে হাত তুলার পরেও তার ভিতরে নেই বিন্দু মাত্র অনুশোচনা। বরং সে উচ্চ সরে বলতেছে, “তোরা আমার কি করবি কর, আমি এসব পরোয়া করি না।” ইফতারে আগ মুহূর্ত হওয়ায় সবাই ব্যস্ত, তাই নারায়ণগঞ্জ সদর থানার এস আই ( মোস্তফা) এসে তার হয়ে ক্ষমা চেয়ে, ঘটনা স্থল থেকে সাংবাদিকদের যাওয়ার অনুরোধ করে।পরক্ষণেই বেশ কিছু গণমাধ্যম কর্মী ঘটনা স্থলে উপস্থিত হইলে,কনেস্টেবল রিদয় ১ নং গেইট থেকে মেট্টহল ট্রাফিক অফিসে চলে যায়।সেখানেও অনেক গণমাধ্যম কর্মী উপস্থিত হলে, সে মন গড়া গল্প সাজায়।এবং মিথ্যা বানোয়াট কথা বলতে থাকে।তবে সাংবাদিকের মুঠোফোনে বিডিও থাকায়, তার সে বানোয়াট অভিযোগ টেকেনি।এডমিন সহ সমাই সহনশীলতা দেখালেও তার ভিতরে অপরাধ বোধ এর ছিটেফোঁটাও ছিলো না।তবে উপরের কর্মকর্তারদের চাপেই ইচ্ছা না থাকার পরও সে স্যরি বলে ও হাসতে থাকে।রাস্তায় থাকা কিছু দোকানদার তার পক্ষে কথা বললেও বেশ কিছু লোক তার এই আচারণে অসন্তুষ্ট প্রকাশ করে আরিফ নামের এক ব্যক্তি বলে “আগে পরে অনেক পুলিশ এখানে ডিউটি করেছে ভালো মন্দ মিলাইয়াই মানুষ তবে, এই পুলিশকে মনে হয় পরিবার ভালো ভাবে শিখাতে পারে নাই,সে বুড়ো থেকে যুবক সবার সাথে এতো খারাপ আচারন করে তা তো আপনারা মনে হয় বুঝতে পারছেন,আপনাদেরই ছারে নাই আর কি কমু” আমরা জানি পুলিশ জনতা, জনতাই পুলিশ, পুলিশ সাধারণ মানুষের ভরসা ; তবে এমন পুলিশ জনতার জন্য কতোটা আস্থাশীল বা ভরসা নিয়ে আসবে না কারোরি বোধগ্যমে নেই। এমন পুলিশ সদস্যের জন্যই সাধারণ জনগণের হয়রানি সহ পরতে হয় নানা বিপাকে। এসব পুলিশ নামের সন্ত্রাসের হাত থেকে রক্ষা কবে পাবে জনগন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


ফেসবুকে আমরা

Categories